বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থ ও কবিতা



বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের প্রাচীনতম শাখা- কাব্য। সপ্তদশ শতাব্দীর মধ্যভাগে বাংলা কাব্যের সূচনা ঘটে। বাংলা সাহিত্যের সর্বাধিক সমৃদ্ধ ধারা গীতিকবিতা। উনিশ শতকের গীতিকাব্য ধারার অন্যতম কবি বিহারীলাল চক্রবর্তী। বাংলা গীতিকবিতার পূর্ণবিকাশ ঘটে রবীন্দ্রনাথের হাতে ।নিচে বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থ ও কবিতার একটি তালিকা দেওয়া হল। যা থেকে বিসিএস সহ যে কোন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় কমন থাকে।



বাংলা কাব্যগ্রন্থ ও কবিতা সম্পর্কিত কিছু তথ্য

✔আধুনিক যুগের বাংলা সাহিত্যের প্রথম কাব্য রঙ্গলাল বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘পদ্মিনী উপাখ্যান' (১৮৫৮)।
✔আধুনিক বাংলা গীতিকাব্যের প্রথম ও প্রধান কবি বিহারীলাল চক্রবর্তী।
✔বাংলা কাব্যে আধুনিক যুগের প্রবর্তক মাইকেল মধুসূদন দত্ত ।
✔বাংলা সাহিত্যে প্রথম বিদ্রোহী প্রধান কাব্য ‘অগ্নিবীণা’ (১৯২২)।
✔বাংলা সাহিত্যের প্রথম জীবনীকাব্য ‘শ্রী চৈতন্যভাগবত' ।
✔বাংলা সাহিত্যের প্রাচীনতম ধারা কবিতা। কবিতা দুই প্রকার । যথা: ১.তন্ময় কবিতা, ২. মন্ময় কবিতা ।
✔Ode অর্থ গাথা বা গান বা স্তোত্র বা প্রাচীন গ্রিক কবিতা যা গ্রিক সাহিত্য হতে উদ্ভূত। প্রাচীনকালে গ্রীসে রঙ্গমঞ্চে কোরাসে বিভিন্ন সুরে নানা অঙ্গভঙ্গি দ্বারা সংগীত ও নাচের মাধ্যমে যে গান গাওয়া হতো তাকে Ode বলা হতো। বর্তমানকালে প্রশস্তিমূলক গীতিকবিতায় কোন গম্ভীর বিষয়বস্তু বা উপাদানের মাধ্যমে কবির মনের অনুভূতির ভাবমূর্তির প্রকাশকে স্তোত্র কবিতা নামে আখ্যায়িত করা হয় ।
✔বাংলা সাহিত্যে আধুনিক যুগের প্রথম কবি ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত।
✔বাংলা সাহিত্যের প্রথম মহিলা কবি চন্দ্রাবতী। মধ্যযুগের কবি চন্দ্রাবতী ছিলেন কিশোরগঞ্জ অঞ্চলের এবং তাঁর পিতার নাম দ্বিজ বংশীদাস ।
✔আধুনিক বাংলা সাহিত্যের প্রথম মহিলা কবি স্বর্ণকুমারী দেবী।
✔বাংলা কবিতার ছন্দের জাদুকর সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত।
✔বাংলা কবিতায় মুক্তক ছন্দের প্রবর্তক কাজী নজরুল ইসলাম।
✔বাংলা সাহিত্যের ছান্দসিক কবি আবদুল কাদির।
✔টি.এস এলিয়টের ইংরেজি কবিতা প্রথম বাংলায় অনুবাদ করেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। এর মাধ্যমে বাঙালি কবিদের আধুনিক কবিতার সাথে পরিচয় ঘটে।
✔বাংলা সাহিত্যে আধুনিক কবিতার স্রষ্টাদের পাঁচজন লেখক জীবনানন্দ দাশ, বিষ্ণু দে, বুদ্ধদেব বসু, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত এবং অমিয় চক্রবর্তীকে একত্রে ‘পঞ্চপাণ্ডব’ বলা হয়। এরা ত্রিশের দশকের কবি । শামসুর রাহমান, সমর সেনকে বলা হয় অতি আধুনিক কবি ।
✔বাংলা কাব্যে প্রথম প্রচুর পরিমাণ আরবি ও ফারসি শব্দ ব্যবহার করেন মোহিতলাল মজুমদার এবং পরবর্তীতে কাজী নজরুল ইসলাম।


বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থ

 

কবি

কাব্যগ্রন্থ

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

‘কবি-কাহিনী' (১৮৭৮): প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ, যা অমিত্রাক্ষর ছন্দে রচিত। ‘বনফুল', ‘কড়ি ও কোমল’, ‘সোনার তরী', ‘চিত্রা’, ‘ক্ষণিকা’, ‘নৈবেদ্য’, ‘খেয়া’, ‘গীতাঞ্জলি’, ‘বলাকা”, ‘পূরবী’, ‘শেষলেখা’, ‘মানসী’, ‘চৈতালি’, ‘কল্পনা’, ‘পত্রপূট’, ‘সেঁজুতি’, ‘আকাশ প্রদীপ', ‘ভানুসিংহ ঠাকুরের পদাবলি', 'পুনশ্চ'।

কাজী নজরুল ইসলাম

‘অগ্নিবীণা’ (সেপ্টেম্বর, ১৯২২) : প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ। ‘সন্ধ্যা', 'বিষের বাঁশি', ‘প্রলয়শিখা', ‘দোলনচাঁপা’, ‘সঞ্চিতা’, ‘মরুভাস্কর’, ‘চিত্তনামা', ‘সিন্ধু হিন্দোল’, ‘চন্দ্ৰবিন্দু’, ‘ঝিঙেফুল', ‘সাতভাই চম্পা', ‘সর্বহারা’, ‘সাম্যবাদী’, ‘ভাঙার গান’, ‘ঝড়’, ‘ফণিমনসা’, ‘জিঞ্জির’, ‘ছায়ানট’, ‘পূবের হাওয়া’, ‘চক্রবাক’।

সুকুমার রায়

‘আবোল-তাবোল’, ‘হ-য-ব-র-ল’, ‘খাই খাই” ।

শহীদ কাদরী

‘উত্তরাধিকার’, ‘তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা' ।

বিষ্ণু দে

‘উর্বশী ও আর্টেমিস’, ‘চোরাবালি’, ‘সাত ভাই চম্পা' ।

দাউদ হায়দার

‘জন্মই আমার আজন্ম পাপ’, ‘নারকীয় ভুবনের কবিতা’, ‘আমি ভাল আছি তুমি’

নবীনচন্দ্র সেন

‘পলাশীর যুদ্ধ’

আবুল হাসান

‘রাজা যায় রাজা আসে'

আবদুল কাদির

‘দিলরুবা’, ‘উত্তর বসন্ত'।

প্রেমেন্দ্র মিত্র

‘প্ৰথমা’

হেমচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়

‘চিন্তাতরঙ্গিণী’

সমর সেন

‘কয়েকটি কবিতা’,

সুরেন্দ্রনাথ মজুমদার

‘মহিলা’

দ্বিজেন্দ্রনাথ ঠাকুর

‘স্বপ্নপ্ৰয়াণ’

আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ

’সাত নরী হার’ , ’আমি কিংবদন্তির কথা বলছি’

বন্দে আলী মিয়া

’পদ্মা নদীর চর’ , ‘ ময়নামতির চর’ , ’অনুরাগ’

সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত

’বেনু ও বীনা’ , ‘সবিতা’ , ’কুহু ও কেকা’

কামিনী রায়

’আলো ও ছায়া’ , ’দীপ ও ধূপ’

যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত

’মরীচিকা’ , ’মরুশিখা’ , ’মরু মায়া’

মোহিতলাল মজুমদার

‘স্বপন পসারী’, ‘হেমন্ত গোধূলি’

গোবিন্দচন্দ্র দাস

‘প্রেম ও ফুল’, ‘মগের মুলুক'

যতীন্দ্রমোহন বাগচী

‘অপরাজিতা’, ‘নীহারিকা’

অক্ষয়কুমার বড়াল

‘এষা’

নির্মলেন্দু গুণ

 ‘প্রেমাংশুর রক্ত চাই’ , না প্রেমিক না বিপ্লবী, হুলিয়া

 

বিখ্যাত কবিতা

 

কবি

কবিতা

রামনিধি গুপ্ত

স্বদেশী ভাষা

ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত

বড় কে

আবদুল কাদির

জয়যাত্রা

শেখ ফজলল করিম

গায়ের ডাক, স্বর্গ ও নরক

কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার

মিতব্যয়িতা, সমব্যথি

কালীপ্রসন্ন ঘোষ

পারিব না

রজনীকান্ত সেন

স্বাধীনতার সুখ

সিকান্দার আবু জাফর

বাংলা ছাড়ো, আমাদের সংগ্রাম চলবেই

মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান

শহীদ স্মরণে

হুমায়ূন কবির

মেঘনায় ঢল

নির্মলেন্দু গুণ

না প্রেমিক না বিপ্লবী, হুলিয়া

সুকুমার বড়ুয়া

এমন যদি হত

আবুল হোসেন মিয়া

একটু খানি

মোহিতলাল মজুমদার

‘বেদুঈন’

সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত

’উত্তম ও অধম’ , ‘কোন দেশে’

গোবিন্দচন্দ্র দাস

’জন্মভূমি’

কামিনী রায়

’পরার্থে’ , ‘পাছে লোকে কিছু বলে’ , ’সুখ’

যতীন্দ্রমোহন বাগচী

‘কাজলা দিদি’

বন্দে আলী মিয়া

‘আমাদের গ্রাম’ ‘কুঁচবরণ কন্যা’

যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত

‘ডাক হরকরা’

অক্ষয়কুমার বড়াল

‘ মানব বন্দনা’

আব্দুল হাকিম

’বঙ্গবাণী’

অমিয় চক্রবর্তী

’বাংলাদেশ’

মোহাম্মদ মুনিরুজ্জামান

’শহীদ স্মরণে’

রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহ

’বাতাসে লাশের গন্ধ’

 

এই পোস্টগুলি আপনার ভাল লাগতে পারে:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন