মীর মশাররফ হোসেন




মীর মশাররফ হোসেন (১৮৪৭-১৯১২)


আধুনিক বাংলা সাহিত্যের প্রথম উল্লেখযোগ্য মুসলিম সাহিত্যিক বা গদ্য লেখক, নাট্যকার ও ঔপন্যাসিক মীর মশাররফ হোসেন। তিনি কাব্য, নাটক, প্রহসন, উপন্যাস ও প্রবন্ধ রচনা করে আধুনিক বাংলা সাহিত্যে মুসলিম রচিত সমৃদ্ধ ধারা প্রবর্তন করেন। তিনি আধুনিক বাংলা সাহিত্যের সমন্বয়ধর্মী ধারার প্রবর্তক হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন।

 

সাহিত্যিক উপাদান

সাহিত্যিক তথ্য

জন্ম

মীর মশাররফ হোসেন ১৩ নভেম্বর, ১৮৪৭ খ্রিস্টাব্দে কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালি উপজেলার লাহিনীপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

ছদ্মনাম

তাঁর ছদ্মনাম গাজী মিয়াঁ

সাহিত্য গুরু

তাঁর সাহিত্য গুরু কাঙাল হরিনাথ

বিবাহ

১৯ মে, ১৮৬৫ সালে মশাররফ হোসেনের সাথে নাদির হোসেনের সুন্দরী কন্যা লতিফননেসার বিবাহ স্থির হয়। কিন্তু বিয়ের রাতে নাদির হোসেন কর্তৃক কন্যা বদল করে তাঁর কুরূপা ও বুদ্ধিহীনা কন্যা আজিজননেসার সাথে মশাররফের বিবাহ সম্পন্ন হয় । তাই দাম্পত্য জীবনে তিনি সুখী হননি। ফলে তিনি বিবি কুলসুমকে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করেন ।

সম্পাদনা

তিনি কলকাতার ‘সংবাদ প্রভাকর’ (১৮৩১) ও কুমারখালির ‘গ্রামবার্তা প্রকাশিকা’ (১৮৬৩) পত্রিকায় সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করতেন ।

তিনি ‘আজিজননেহার’ (১৮৭৪) ও ‘হিতকরী' (১৮৯০) পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন।

উপন্যাস

মীর মশাররফের উপন্যাসসমূহ:

রত্নবতী' (১৮৬৯): এটি তাঁর প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ। এটি বাংলা সাহিত্যে মুসলমান রচিত প্রথম উপন্যাস।

বিষাদসিন্ধু” (১৮৮৫-৯১): এটি ইতিহাস আশ্রিত উপন্যাস যা তিন খণ্ডে বিভক্ত। যথা: মহররম পর্ব, উদ্ধার পর্ব, এজিদবধ পর্ব। এতে উপসংহারসহ ৬৩টি অধ্যায় রয়েছে। এটি ইতিহাস, উপন্যাস, সৃষ্টিধর্মী রচনা ও নাটক ইত্যাদি সাহিত্যের বিবিধ সংমিশ্রণে রোমান্টিক আবেগ মাখানো এক মহাকাব্যিক উপন্যাস। হিজরি ৬১ সালের মহররম মাসে ইসলামের সর্বশেষ নবী হযরত মুহম্মদ (স.) এর দৌহিত্র ইমাম হাসান ও হোসেনের সাথে উমাইয়া খলিফা মুয়াবিয়ার একমাত্র পুত্র এজিদের কারবালার প্রান্তরে যুদ্ধ এর বিষয়বস্তু।

‘উদাসীন পথিকের মনের কথা' (১৮৯০) : এটি আত্মজীবনীমূলক উপন্যাস। তিনি এটি ‘উদাসীন পথিক' ছদ্মনামে রচনা করেন। এর প্রথম খণ্ডে আছে নীলকর কেনির অত্যাচার ও কৃষক ভূস্বামীদের প্রতিরোধের মুখে মি. কেনির শোচনীয় পরাজয় এবং দ্বিতীয় খণ্ডে আছে ঔপন্যাসিকের ব্যক্তি জীবনের আলেখ্য।

নাটক

বসন্তকুমারী’ (১৮৭৩): এটি বাংলা সাহিত্যে মুসলমান রচিত প্রথম নাটক। বৃদ্ধ রাজা বীরেন্দ্র সিংহের যুবতী স্ত্রী রেবতী সপত্নী পুত্র নরেন্দ্র সিংহকে প্রেম নিবেদন করে প্রত্যাখাত হয়ে ষড়যন্ত্র শুরু করে। পরিণামে সমগ্র রাজ পরিবারটি ধ্বংস হয়ে যায়, এটিই এ নাটকের মূল বিষয়। মশাররফ এটি নওয়াব আব্দুল লতিফ কে উৎসর্গ করেন।

‘বেহুলা গীতাভিনয়’ (১৮৮৯): এতে ইংরেজ শাসকদের প্রকৃত স্বরূপ উম্মোচন করে তাদের প্রতিরোধ করার আহবান জানিয়েছেন।

‘জমীদার দর্পণ' (১৮৭৩) : মীর মশাররফ হোসেন রচিত মুসলিম চরিত্র অবলম্বনে বিখ্যাত নাটক ‘জমীদার দর্পণ' (১৮৭৩)। লেখকের মতে, ‘এ নাটকের কিছুই সাজানো নয়, প্রচলিত সমাজের অবিকল ছবি' তুলে ধরা হয়েছে। অত্যাচারী ও চরিত্রহীন জমিদার হায়ওয়ান আলীর অত্যাচার এবং অধীনস্ত প্রজা আবু মোল্লার গর্ভবতী স্ত্রী নূরন্নেহারকে ধর্ষণ ও হত্যার কাহিনি এর মূল বিষয়।

‘নিয়তি কি অবনতি' (১৮৮৯),

‘টালা অভিনয়’ (১৮৯৭)।

আত্মজীবনী

মীর মশাররফের আত্মজীবনীসমূহ:

‘গাজী মিয়াঁর বস্তানী' (১৮৯৯): এটি আত্মজীবনীমূলক ব্যঙ্গাত্মক রচনা । লেখক ‘ভেড়াকান্ত' ছদ্মনামে ব্যঙ্গের মাধ্যমে সমাজের অনাচার, অন্যায়, সামাজিক দুর্নীতি এবং এ সমাজভুক্ত মানুষের নৈতিক অধঃপতন, মনুষ্যত্ব ও হৃদয়হীন আচরণের চিত্রই এখানে চিত্রিত করেছেন।

‘আমার জীবনী' (১৯১০): লেখকের আঠারো বছরের জীবন কাহিনি এতে অন্তর্ভুক্ত।

‘কুলসুম জীবনী' (১৯১০): এটি লেখকের দ্বিতীয় স্ত্রী কুলসুমকে কেন্দ্র করে লিখিত ।

কাব্য

মীর মশাররফের কাব্যসমূহ:

‘গোরাই ব্রীজ বা গৌরী সেতু (১৮৭৩),

পঞ্চনারী’ (১৮৯৯),

‘প্রেম পারিজাত' (১৮৯৯),

‘মদিনার গৌরব’ (১৯০৬),

‘মোসলেম বীরত্ব' (১৯০৭),

‘বাজীমাৎ' (১৯০৮)।

প্রহসন

মীর মশাররফের প্রহসনসমূহ:

‘এর উপায় কি’ (১৮৭৫): বাংলা সাহিত্যে মুসলমান রচিত প্রথম প্রহসন। উনিশ শতকে এক শ্রেণির লোক স্ত্রীর প্রতি অবহেলা দেখিয়ে মদ ও পতিতাবৃত্তিতে আকৃষ্ট হয়ে নানা ধরনের অনাচার ও উচ্ছৃঙ্খলায় নিমজ্জিত হয়েছিল, তারই চিত্র এ প্রহসন ।

‘ভাই ভাই এইতো চাই' (১৮৯৯),

‘ফাঁস কাগজ' (১৮৯৯),

‘বাঁধা খাতা’ (১৮৯৯)।

গানের সংকলন

মীর মশাররফের গানের সংকলনের নাম ‘সংগীত লহরী’ (১৮৭৭)।

প্রবন্ধ

‘গো-জীবন’ (১৮৮৯): কৃষিনির্ভর অর্থনীতিতে যে কোনো কারণেই হোক গো-হত্যা অনুচিত। হিন্দু-মুসলিম এই দুই ধর্মের অনুসারীদের একত্র করার প্রয়াসে তিনি এটি রচনা করেন। তাঁর মত ছিল, গোরু কুরবানির বদলে অন্য কিছু ( যেমনঃ ছাগল) কুরবানি দেওয়ার। এই প্রবন্ধ লেখার পর সৈয়দ মীর মোশারাফ হোসেন প্রবল নিন্দার সম্মুখীন হন। তাঁর নামে ফতোয়া জারি হয়। ধর্মসভা ডেকে তাঁকে কাফের এবং তাঁর স্ত্রীকে হারাম জারি করা হয়। তাঁকে বলা হয় 'তওবা' করতে। ক্ষুব্ধ লেখক প্রথমে একটি মামলা দায়ের করলেও পরে ব্যাপারটি আপসে মিটিয়ে নেন। কিন্তু গো-জীবন এর পরবর্তীকালে আর ছাপা হয়নি।

‘এসলামের জয়' (১৯০৮)।

মৃত্যু

তিনি ১৯ ডিসেম্বর, ১৯১১ খ্রিস্টাব্দে দেলদুয়ার জমিদার এস্টেটে নায়েব বা ম্যানেজার থাকাকালেই সৈয়দ মীর মশাররফ হোসেন মৃত্যুবরণ করেন। তাকে পদমদীতে দাফন করা হয়।এখানেই 'মীর মশাররফ হোসেন ’স্মৃতি কমপ্লেক্স' অবস্থিত। (১৯১১- উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা এবং উইকিপিডিয়া), (১৯১২- বাংলা একাডেমি চরিতাভিধান)।

 

এই পোস্টগুলি আপনার ভাল লাগতে পারে:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন