কাজী আবদুল ওদুদ



কাজী আবদুল ওদুদ (১৮৯৪-১৯৭০)


প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক ও চিন্তাবিদ কাজী আবদুল ওদুদ ছিলেন মুক্তচিন্তা ও মুক্তবুদ্ধি সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব। আধুনিক বাংলা সাহিত্যধারায় আবদুল ওদুদের প্রধান পরিচয় চিন্তাশীল লেখক হিসেবে। ১৯২৬ সালে প্রতিষ্ঠিত 'মুসলিম সাহিত্য সমাজ' এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। সাহিত্য সমাজের 'শিখা' (১৯২৭) পত্রিকায় লেখার জন্য নওয়াব পরিবার কর্তৃক নিগৃহীত হন এবং ঢাকা ত্যাগ করে কলকাতায় স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। সাহিত্য সমাজের নেতৃত্বে পরিচালিত বুদ্ধির মুক্তি আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।

 

সাহিত্যিক উপাদান

সাহিত্যিক তথ্য

জন্ম

কাজী আবদুল ওদুদ ২৬ এপ্রিল, ১৮৯৪ খ্রিস্টাব্দে রাজবাড়ী (তৎকালীন ফরিদপুর) জেলার পাংশা উপজেলার বাগমারা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ।

বিবাহ

১৯১৬ সালে তিনি তার চাচার বড় মেয়ে জামিলা খাতুনকে বিয়ে করেন। জামিলা খাতুন ১৯৫৪ সালে মারা যান।

সম্পাদনা

তিনি কলকাতা থেকে প্রকাশিত সাময়িক ‘সংকল্প' (১৯৫৪) পত্রিকার সম্পাদক এবং ‘তরুণ পত্র' (১৯৬৫) পত্রিকার সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি ছিলেন।

সংকলন

তিনি ‘ব্যবহারিক শব্দকোষ' (১৯৫৩) নামে একটি অভিধান সংকলন করেন।

সাহিত্যকর্ম

কাজী আবদুল ওদুদের সাহিত্যকর্মসমূহ:

উপন্যাস:

‘নদীবক্ষে' (১৯১৮) উপন্যাসটি তাঁর ছাত্রাবস্থায় প্রকাশিত হয়। গ্রামীণ সমাজের কলহ, বিবাদ, দ্বন্দ্ব আবার মিলনের কথা চারটি কৃষক পরিবারকে কেন্দ্র করে এ উপন্যাসটির আখ্যানভাগ এগিয়ে চলেছে। এ উপন্যাসে কাজী আবদুল ওদুদ দেখিয়েছেন গ্রামের মুসলিমরা ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল কিন্তু ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি তাদের মাঝে নেই। লালু ও মতির প্রণয়ঘটিত সম্পর্ক ব্যাপক আকর্ষণীয়। কাজী আবদুল ওদুদ বাংলাদেশের শাশ্বত ধর্মবোধকেই এখানে তুলে ধরেছেন। এ উপন্যাসে অন্ত্যজ চাষি মুসলিম জীবনের যে নির্ভরযোগ্য চিত্র উল্লেখ আছে, তা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকেও আকৃষ্ট করেছিল।

আজাদ' (১৯৪৮)।

প্রবন্ধ:

‘শাশ্বতবঙ্গ' (১৯৫১), এটি আবদুল ওদুদ রচিত প্রবন্ধের সংকলন। ‘শাশ্বতবঙ্গ' এর প্রবন্ধগুলো ৬টি ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। প্রবন্ধগুলোতে লেখক বৃহৎ বাংলা ও ভারতের পরিপ্রেক্ষিতে মানুষের বুদ্ধির মুক্তি ঘটাতে চেয়েছেন এবং শিক্ষিত সমাজের অসাবধানতায় জাতির কতটুকু বিড়ম্বনা ঘটতে পারে, সে আশঙ্কাও ব্যক্ত করেছেন। তিনি এখানে অবিভক্ত বাংলা প্রত্যাশা করেছিলেন।

‘বাঙালার জাগরণ’ (১৯৫৬) : এটি ১৯৫৬ সালে ‘বিশ্বভারতী’তে প্রদত্ত বক্তৃতাবলির সংকলন ।

‘রবীন্দ্রকাব্য পাঠ' (১৯২৭),

‘সমাজ ও সাহিত্য' (১৯৩৪),

‘হিন্দু-মুসলমানের বিরোধ' (১৯৩৬),

'কবিগুরু গোটে (১৯৪৬, এটি দুই খণ্ডে প্রকাশিত),

‘নজরুল প্রতিভা (১৯৪৯),

‘কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ' (১ম খণ্ড- ১৯৬২, ২য় খণ্ড ১৯৬৯),

‘মোহাম্মদ ও ইসলাম' (১৯৬৬)।

নাটক : ‘পথ ও বিপথ' (১৯৩৯), ‘মানব বন্ধু’ (১৯৪১)।

গল্পগ্রন্থ : ‘মীর পরিবার' (১৯১৮)- এটি তার ছাত্রাবস্থায় প্রকাশিত হয়। ‘তরুণ' (১৯৪৮)।

মৃত্যু

তিনি ১৯ মে, ১৯৭০ সালে কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন।

 

এই পোস্টগুলি আপনার ভাল লাগতে পারে:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন