ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্



ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ (১৮৮৫-১৯৬৯)


ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ ছিলেন একাধারে বহুভাষাবিদ, পণ্ডিত, সাহিত্যিক, ধর্মবেত্তা ও শিক্ষাবিদ। বাংলা সাহিত্য সম্পর্কিত গবেষণার জন্য তাঁর নাম এদেশের সাহিত্যের ইতিহাসে অত্যুজ্জ্বল হয়ে আছে। সে জন্য তাঁকে ‘জ্ঞানতাপস’ অভিধায় অভিহিত করা হয়। পাকিস্তান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর রাষ্ট্রভাষা বিতর্ক শুরু হলে তিনি বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার পক্ষে জোরালো মত দেন। মধ্যজীবন থেকে মৃত্যু পর্যন্ত তিনি ভাষাতত্ত্বচর্চা বাদ দিয়ে ইসলাম চর্চা ও তা প্রসারে আত্মনিয়োগ করেছিলেন।

 

সাহিত্যিক উপাদান

সাহিত্যিক তথ্য

জন্ম ও নাম

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ ১০ জুলাই, ১৮৮৫ খ্রিস্টাব্দে পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগণার পেয়ারা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। আকিকাকৃত নাম মুহম্মদ ইব্রাহিম। পরবর্তীতে তাঁর মা হুরুন্নেসা সে নাম পরিবর্তন করে রাখেন মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্

ছেলে

বাংলাদেশের বিখ্যাত চিত্রশিল্পী ও কার্টুনিস্ট মর্তুজা বশীর তার ছেলে ।

সম্পাদনা

তিনি ‘আঙুর’ (১৯২০- শিশু পত্রিকা), ‘দি পিস' (১৯২৩- ইংরেজি মাসিক পত্রিকা), ‘বঙ্গভূমিক’ (১৯৩৭ - মাসিক সাহিত্য পত্রিকা), “তকবীর’ (১৯৪৭- পাক্ষিক পত্রিকা) পত্রিকা সম্পাদনা করতেন এবং ‘আল এসলাম' (১৯১৫) পত্রিকার সহসম্পাদক ছিলেন।

সভাপতিত্ব

তিনি ১৯ জানুয়ারি, ১৯২৬ সালে ঢাকায় ‘মুসলিম সাহিত্য সমাজ' কর্তৃক আয়োজিত প্রতিষ্ঠা সভার সভাপতি ছিলেন ।

পাণ্ডিত্য

তিনি মোট ২৬টি ভাষা আয়ত্ত করেছিলেন, এর মধ্যে ১৮টি ভাষায় ছিল তার অগাধ পাণ্ডিত্য ।

বাংলা একাডেমিতে যোগদান

তিনি ১ জুলাই, ১৯৬০ সালে ‘পূর্ব পাকিস্তানি ভাষার আদর্শ অভিধান' প্রকল্পের সম্পাদক হিসেবে বাংলা একাডেমিতে যোগদান করেন এবং ১৯৬৩ সালে ‘পূর্ব পাকিস্তানি ভাষার আদর্শ অভিধান' এর কাজ সম্পন্ন করেন ।

ইমেরিটাস অধ্যাপক

তিনি ১৯৬৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ‘ইমেরিটাস অধ্যাপক' পদ লাভ করেন।

কর্মজীবন

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ ২ জুন, ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ‘বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য সমিতি'র (৪ সেপ্টেম্বর, ১৯১১) সম্পাদক (১৯১১-১৫)। ১৯৬৩ সালে বাংলা একাডেমি কর্তৃক ‘বাংলা পঞ্জিকা তারিখ বিন্যাস' কমিটির সভাপতি, বাংলা একাডেমি'র ইসলামি বিশ্বকোষ প্রকল্পের (১৯৬৪) সম্পাদক এবং পাকিস্তান এশিয়াটিক সোসাইটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন । তিনি প্রিন্সিপাল ইব্রাহীম খাঁ ও অধ্যাপক আবুল কাশেম সহযোগে মিরপুর বাংলা কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি ১৯৪৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে অবসর গ্রহণ করে বগুড়া আজিজুল হক কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৫৫ সালে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন এবং কলা অনুষদের ডিন ছিলেন।

গবেষণামূলক গ্রন্থ

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর গবেষণামূলক গ্রন্থগুলো:

‘বাংলাদেশের আঞ্চলিক ভাষার অভিধান' (১৯৬৫): এটি বাংলা একাডেমি কর্তৃক প্রকাশিত। এটি বাংলা ভাষার প্রথম আঞ্চলিক অভিধান । বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের উপভাষার একটি সংকলন গ্রন্থ।

 

Buddhist Mystic Songs (১৯৬০): এটি ‘চর্যাপদ’ বিষয়ক গবেষণা গ্রন্থ।

 

‘সিদ্ধা কানুপার গীত ও দোহা' (১৯২৬),

‘ভাষা ও সাহিত্য’ (১৯৩১),

‘বাংলা সাহিত্যের কথা' (১ম খণ্ড- ১৯৫৩, ২য় খণ্ড- ১৯৬৫),

‘বাংলা ব্যাকরণ' (১৯৫৮),

‘বৌদ্ধ মর্মবাদীর গান’ (১৯৬০),

‘বাংলা ভাষার ইতিবৃত্ত' (১৯৬৫)।

সাহিত্যকর্ম

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ সাহিত্যকর্মসমূহ:

প্রবন্ধ: ‘ইকবাল’ (১৯৪৫), ‘Essays on Islam' (১৯৪৫), ‘আমাদের সমস্যা' (১৯৪৯),‘বাংলা আদব কি তারিখ’ (১৯৫৭), ‘Traditional Culture in East Pakistan' (১৯৬৩ সালে তিনি এটি মুহম্মদ আবদুল হাই সহযোগে রচনা করেন)।

 

অনুবাদ গ্রন্থ: ‘দীওয়ানে হাফিজ' (১৯৩৮), ‘মহানবী’ (১৯৪০), ‘অমিয়শতক' (১৯৪০), ‘বাণী শিকওয়াহ’ (১৯৪২), ‘জওয়াব-ই-শিকওয়াহ' (১৯৪২), ‘রুবাইয়াত-ই-ওমর খ্যায়াম' (১৯৪২), ‘বাইঅতনামা' (১৯৪৮),‘বিদ্যাপতি শতক’ (১৯৫৪), ‘কুরআন প্রসঙ্গ' (১৯৬২), ‘মহররম শরীফ' (১৯৬২), ‘অমর কাব্য’ (১৯৬৩), ‘ইসলাম প্রসঙ্গ' (১৯৬৩)।

 

সম্পাদিত গ্রন্থ: ‘পদ্মাবতী' (১৯৫০), 'প্রাচীন ধর্মগ্রন্থে শেষ নবী' (১৯৫২)।

গল্পগ্রন্থ: ‘রকমারি’ (১৯৩১), ‘গল্প সঞ্চয়ণ' [এটি সৈয়দ আলী আহসান সহযোগে রচিত]

 

শিশুতোষ গ্রন্থ : ‘ছোটদের রসুলুল্লাহ' (১৯৬২), ‘সেকালের রূপকথা’ (১৯৬৫), ‘শেষ নবীর সন্ধানে' ।

বিখ্যাত উক্তি

১. ‘আমরা হিন্দু বা মুসলমান যেমন সত্য, তার চেয়ে বেশি সত্য আমরা বাঙালি। এটি কোন আদর্শের কথা নয়, এটি বাস্তব কথা ।

২. ‘যে দেশে গুণের সমাদর নেই, সে দেশে গুণীজন জন্মাতে পারে না।'

মৃত্যু

তিনি ১৩ জুলাই, ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে মারা যান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল প্রাঙ্গণে তাকে সমাহিত করা হয়। ঐ বছরই ‘ঢাকা হল’ এর নাম পরিবর্তন করে “শহীদুল্লাহ হল' নাম রাখা হয়।

 

এই পোস্টগুলি আপনার ভাল লাগতে পারে:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন