দীনবন্ধু মিত্র


 

দীনবন্ধু মিত্র (১৮৩০-১৮৭৩)


বাংলা ভাষায় সর্বপ্রথম আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক বিষয়ে নাটক লেখেন দীনবন্ধু মিত্র। তিনি ঈশ্বর গুপ্তের অনুপ্রেরণায় কবিতা রচনা দিয়ে সাহিত্যজীবন শুরু করেন। বাংলার আধুনিক নাট্যধারার প্রবর্তক মাইকেল মধুসূদন দত্তের সমসাময়িক দীনবন্ধু মাইকেল প্রবর্তিত পৌরাণিক বা ঐতিহাসিক নাট্যরচনার পথে না গিয়ে বাস্তবধর্মী সামাজিক নাট্যরচনায় মনোনিবেশ করেন ।

 

সাহিত্যিক উপাদান

সাহিত্যিক তথ্য

জন্ম

দীনবন্ধু মিত্র ১৮৩০ সালে নদীয়ার চৌবেড়িয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি পিতৃপ্রদত্ত নাম ‘গন্ধর্ব নারায়ণ’ পরিবর্তন করে নিজে রাখেন ‘দীনবন্ধু’।

সাহিত্যজীবন শুরু

তিনি 'সংবাদ প্রভাকর' (১৮৩১) ও ‘সংবাদ সাধুরঞ্জন' (১৮৪৭) পত্রিকায় কবিতা প্রকাশের মাধ্যমে সাহিত্যজীবন শুরু করেন।

উপাধি

১৮৭১ সালে লুসাই যুদ্ধের সময় কাছাড়ে সফলভাবে ডাক বিভাগ পরিচালনা করেন, এজন্য সরকার তাঁকে ‘রায়বাহাদুর’ উপাধিতে ভূষিত করে।

বিখ্যাত নাটক

দীনবন্ধু মিত্র রচিত বিখ্যাত নাটক  ‘নীলদর্পণ' (১৮৬০): এটি ঢাকার বাংলা প্রেস থেকে প্রকাশিত প্রথম গ্রন্থ। এতে মেহেরপুরের কৃষকদের ওপর নীলকরদের নির্মম নির্যাতনের চিত্র ফুটে উঠেছে। নাটকটি প্রথম মঞ্চায়ন হয় ঢাকায়। এ নাটকটি প্রথম প্রকাশের সময় দীনবন্ধুর নাম ছিল না। এ নাটকের অভিনয় দেখতে এসে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মঞ্চের অভিনেতাদের লক্ষ্য করে জুতা ছুড়ে মেরেছিলেন। নাটকটির ঘটনা, রচনা, মুদ্রণ, প্রকাশ ও প্রথম মঞ্চায়ন সব কিছুই বাংলাদেশে বলে, একে ‘বাংলাদেশের নাটক' বলা হয়।

অন্যান্য নাটক

দীনবন্ধু মিত্রের অন্যান্য নাটক:  

‘জামাই বারিক’ (১৮৭২): নাটকটি ১৪ ডিসেম্বর, ১৮৭২ সালে কলকাতার ন্যাশনাল থিয়েটারে প্রথম মঞ্চস্থ হয়। বিন্দুবাসিনী ও বগলার কলহ এবং দুই স্ত্রীর বৃত্তান্ত এ নাটকের মূল বিষয়। এ নাটকে দেখা যায়, সে সময়কালে দিনের বেলায় স্ত্রীর সাথে জামাইদের দেখা করার কোনো সুযোগ ছিলো না, ফলে রাতে জামাইদের ডাক পড়ত অন্তঃপুরে। উল্লেখযোগ্য চরিত্র: বিজাবল্লভ, অভয়কুমার, কামিনী, বগলা, বিন্দুবাসিনী ।

‘কমলে কামিনী’ (১৮৭৩): নাটকটি ২০ ডিসেম্বর, ১৮৭৩ সালে কলকাতার ন্যাশনাল থিয়েটারে প্রথম মঞ্চস্থ হয়। এ নাটকটি কাছাড় অঞ্চলের অভিজাত কিন্তু মনস্তাত্ত্বিক ভাবে দুর্বল মানুষদের আখ্যান। চরিত্র: সমরকেতু, শশাঙ্কশেখর, গান্ধারী, সুশীলা, সুরবালা।

‘নবীন তপস্বিনী' (১৮৬৩),

'লীলাবতী' (১৮৬৭)।

কাব্যগ্রন্থ

দীনবন্ধু মিত্রের কাব্য:

‘সুরধুনী কাব্য' (১ম ভাগ- ১৮৭১, ২য় ভাগ- ১৮৭৬)

‘দ্বাদশ কবিতা” (১৮৭২)। কাব্যটিতে হিমালয় থেকে গঙ্গাদেবীর সাগরসঙ্গমে যাত্রার ছন্দবদ্ধ বর্ণনা উপস্থাপিত হয়েছে।

প্রহসন

দীনবন্ধু মিত্রের প্রহসন:

‘সধবার একাদশী' (১৮৬৬): এটি নব্য ইংরেজি শিক্ষিত যুবকদের মদ্যপান ও বারবনিতা সঙ্গকে ব্যঙ্গ করে রচিত। এতে তিনটি অঙ্ক আছে।

‘বিয়ে পাগলা বুড়ো' (১৮৬৬): নাটকটি ১৮৭২ সালে প্রথম অভিনীত হয়। এটি - সমাজের প্রাচীনপন্থীদের ব্যঙ্গ করে রচিত। এ প্রহসনে বিবাহবাতিকগ্রস্ত এক বৃদ্ধের নকল বিয়ের আয়োজন করে স্কুলের অপরিপক্ব ছেলেরা কিভাবে তাকে নাস্তানুবাদ করে, সে কাহিনিই এ প্রহসনের বিষয়। চরিত্রঃ নসিরাম, রতা, রাজীব, রাজমণি, কেশব, বৈকুণ্ঠ।

গল্প

দীনবন্ধু মিত্রের গল্প দুটি যথা:

১. ‘যমালয়ে জীবন্ত মানুষ' (১২৭৯),

২. ‘পোড়া মহেশ্বর' (১২৭৯)।

মৃত্যু

তিনি ১ নভেম্বর, ১৮৭৩ সালে মারা যান।

 

এই পোস্টগুলি আপনার ভাল লাগতে পারে:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন