লালন সাঁই


লালন সাঁই (১৭৭২-১৮৯০)


মানবতার বাহক লালন শাহ্ বাউল সাধক ও বাউল কবি হিসেবে খ্যাত। প্রাতিষ্ঠানিক বিদ্যালাভ না করলেও নিজের সাধনায় হিন্দু- মুসলমান শাস্ত্র সম্পর্কে বিশেষ জ্ঞান ও ব্যুৎপত্তি লাভ করেন। সাম্প্রদায়িক ভেদবুদ্ধি মুক্ত এক সর্বজনীন ভাবরসে ঋদ্ধ বলে তাঁর রচিত গান বাংলায় হিন্দু-মুসলমান উভয় সম্প্রদায়ের কাছে সমানভাবে জনপ্রিয় ।

 

সাহিত্যিক উপাদান

সাহিত্যিক তথ্য

জন্ম

লালন শাহ্ অক্টোবর, ১৭৭২ খ্রিস্টাব্দে (১ কার্তিক, ১১৭৯) ঝিনাইদহের হরিশপুর গ্রামে / কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালির ভাঁড়ারা গ্রামে এক হিন্দু কায়স্থ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন ।

গঙ্গাস্নান

কথিত আছে যে, তিনি কোন এক সময় এক বাউল দলের সঙ্গী হয়ে গঙ্গাস্নানে যান। পথিমধ্যে বসন্ত রোগাক্রান্ত হলে সঙ্গীরা তাঁকে নদীর তীরে ফেলে যান। সিরাজ শাহ নামক জনৈক বাউল সাধক তাঁকে কুড়িয়ে নেন এবং তার কাছে লালিত-পালিত হন ।

পিতৃপ্রদত্ত নাম

লালন সাঁই এর পিতৃপ্রদত্ত নাম ছিল লালনচন্দ্র কর।

লালনের স্কেচ

লালনের একমাত্র যে স্কেচটি প্রচলিত সেটি অঙ্কন করেন অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর ।

আখড়া

সিরাজ শাহের মৃত্যুর পর তিনি কুষ্টিয়ার ছেউরিয়া গ্রামে আখড়া স্থাপন করেন।

খ্যাতির কারণ

তিনি আধ্যাত্মিক ও মরমি রসব্যঞ্জনায় সমৃদ্ধ বাউল সংগীতের জন্য বিখ্যাত ।

রবীন্দ্রনাথের ভূমিকা

লালনকে বিশ্বসমাজে পরিচিত করণে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।রবীন্দ্রনাথ লালনের ২৯৮টি গান সংগ্রহ করে সংরক্ষিত করেন। এর মধ্যে ২০টি গান তিনি ‘প্রবাসী' পত্রিকায় প্রকাশ করেন।

বাউল গান

বাউল গান এক ধরনের আধ্যাত্ম্য বিষয়ক গান। বাংলার পল্লীগীতির বিশেষধারার নাম বাউলগান। পণ্ডিতদের মতে, সতের শতকে বাংলাদেশে বাউল মতের উদ্ভব হয়েছে। সতের শতকে উদ্ভব হলেও উনিশ শতকে শ্রেষ্ঠ সাধক লালন ফকির বাউল গানকে জনপ্রিয় করে তোলেন। তিনি অসংখ্য বাউল গানের গীতিকার, সুরকার ও গায়ক। এ জন্য তাকে ‘বাউল সম্রাট” বলে। তাঁর রচিত গানগুলোকে লালন গীতি বা লালন সঙ্গীত বলে।

বাউল গানের স্বীকৃতি

‘UNESCO’ বাউল গানকে ২৫ নভেম্বর, ২০০৫ সালে ‘A Masterpiece of the Oral and Intangible Heritage Humanity' বলে স্বীকৃতি দিয়েছে ।

বিখ্যাত কিছু গান

১. খাঁচার ভিতর অচিন পাখি কেমনে আসে যায়...

২. মিলন হবে কত দিনে...

৩. আমি অপার হয়ে বসে আছি...

৪. সময় গেলে সাধন হবে না...

৫.সব লোকে কয় লালন কি জাত সংসারে...

৬.কেউ মালা কেউ তসবি গলায়...

৭৮. আপন ঘরে বোঝাই সোনা পরে করে লেনা দেনা...

মৃত্যু

তিনি ১৭ অক্টোবর, ১৮৯০ সালে (বাংলা- ১লা কার্তিক, ১২৯৭) মারা যান ।

 

এই পোস্টগুলি আপনার ভাল লাগতে পারে:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন