শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যের সংক্ষিপ্ত কাহিনী


প্রাচীন যুগে ব্যক্তিজীবন প্রধান ছিল, ধর্ম প্রধান ছিল না । মধ্যযুগে ধর্মটাই মুখ্য হলো,মানুষ হয়ে পড়ল গেীণ।আর আধুনিক যুগে মানুষ মুখ্য হলো এবং মানবতাই একমাত্র কাম্য হয়ে উঠল,সেই সঙ্গে যুক্ত হলো অন্ধবিশ্বাসের পরিবর্তে যুক্তিশীলতা এবং তথ্য প্রমাণ নির্ভরতা।বাংলা ভাষার গ্রন্থের দিক থেকে শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য দ্বিতীয় হলে ও বাংলা সাহিত্যের প্রথম নিদর্শন শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য। শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যের কাহিনী পর্যালোচনা করলে আমরা দেখতে পাই তৎকালীন সমাজের প্রামাণ্য চিত্র। শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যের কাহিনীতে কৃষ্ঞের প্রেমে রাধা ও গোপীদের পাগল-প্রায় অবস্থা বর্ণিত হয়েছে।মূলত কৃষ্ঞকথার আড়ালে ঈশ্বরের প্রতি জীবকুলের আকুলতা প্রকাশিত। বাংলা ভাষায় কোন লেখকের প্রথম একক গ্রন্থ এটি। এ গ্রন্থের লেখক বড়ু চন্ডীদাস। 

শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যের কাহিনী
শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যের কাহিনী

 

শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য

মধ্যযুগের প্রথম কাব্যগ্রন্থ হলো 'শ্রীকৃষ্ণকীর্তন'। গ্রন্থটির রচয়িতা বড়ু চণ্ডীদাস। ভাগবতের কৃষ্ণলীলা সম্পর্কিত কাহিনী অনুসরণে, জয়দেবের 'গীতগোবিন্দ' কাব্যের প্রভাব স্বীকার করে, লোকসমাজে প্রচলিত রাধাকৃষ্ণ প্রেম-সম্পর্কিত গ্রাম্য গল্প অবলম্বনে কবি বড়ু চণ্ডীদাস 'শ্রীকৃষ্ণকীর্তন' কাব্য  রচনা করেন। বড়ু চণ্ডীদাস আনুমানিক চতুর্দশ শতকের কবি। তাঁর প্রকৃত নাম ছিল অনন্ত।

শ্রীকৃষ্ণকীর্তন নামটি প্রদান করেন সম্পাদক বসন্তরঞ্জন রায়। হাতে লেখা পুঁথিখানির প্রথমে দুটি পাতা, মাঝখানে কয়েকটি পাতা ও শেষে অন্তত একটি পাতা নেই। গ্রন্থশেষে কয়েকটি অলিখিত সাদা পাতা আছে। পুথিখানিতে গ্রন্থের নাম, রচনাকাল ও পুথি-নকলের তারিখ কিছুই নেই। এ পুথি অন্য কোনো পুথি থেকে অনুলিখিত হয়েছে, না কারো মুখে শুনে লিপিকৃত, তা বুঝবারও কোনো উপায় নেই। এজন্য কবির পরিচয়,  গ্রন্থনাম, রচনাকাল অংশ পাওয়া যায়নি। পুঁথির ৪৫২ পৃষ্ঠার মাঝের ৪৫ পৃষ্ঠাও পাওয়া যায়নি। তবে বসন্তরঞ্জন রায় নানা মত পর্যালোচনা, সমীক্ষা ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে গ্রন্থটির মূল নাম আবিষ্কারে সচেষ্ট হন এবং এর মূল নাম 'শ্রীকৃষ্ণসন্দর্ভ' বলে মতামত প্রদান করেন।

শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্যের কাহিনী

বড়ায়ি কুট্টিনী চরিত্র। সে চুলপাকা মহিলা। তার আকৃতি যেমন বীভৎস, প্রকৃতিও সেরূপ। বড়ায়িকে আত্মীয়জ্ঞানে রাধার রক্ষণার্থে নিযুক্ত করা হয়। কিন্তু রক্ষকই ভক্ষক হয়েছে। রাধাকে স্বচক্ষে না দেখে বড়ায়ির মুখে তার রূপযৌবনের কথা শুনেই কৃষ্ণ তাকে পেতে চান। কামপ্রস্তাবে রাধার নিকট অপমানিতা হয়ে বড়ায়ি তার প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য কৃষ্ণের সঙ্গে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। বৃদ্ধা হলেও তার কামুকতা ঘুচেনি। সে নির্লজ্জভাবে কৃষ্ণকর্তৃক রাধা-সম্ভোগ দেখে আমোদ উপভোগ করেছে এবং তার অবচেতন মনের কাম-পিপাসা চরিতার্থ করেছে। তার মনের এ কাম- প্রবৃত্তির জন্যই যমুনাখণ্ডে নিজে নগ্ন হয়ে, অসহায় গোপবালাদের নগ্ন হতে বলেছে এবং কৃষ্ণকে বস্ত্রহরণে সহায়তা করেছে। তবে শেষ পর্যন্ত তার মধ্যে মানবীয় গুণের আরোপ করে চণ্ডীদাস তাকে মানবীয়তায় উত্তীর্ণ করেছেন। বাণখণ্ডে বাণাহত রাধার দুর্দশায় তার পাষাণহৃদয় বিগলিত হয়েছে এবং সে কৃষ্ণকে দয়া করতে অনুরোধ করেছে। শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কাব্য তের খণ্ডে বিভক্ত । খণ্ডগুলো হলো –

১.জন্ম খণ্ড
২.তাম্বুল খণ্ড
৩.দান খণ্ড
৪. নৌকা খণ্ড
৫. ভার খণ্ড
৬.ছত্র খণ্ড
৭. বৃন্দাবন খণ্ড
৮. কালিয়দমন খণ্ড
৯. যমুনা খণ্ড
১০. হার খণ্ড
১১. বাণ খণ্ড
১২.বংশী খণ্ড
১৩.রাধা-বিরহ খণ্ড

১.জন্ম খণ্ড

জন্মখণ্ডে মর্ত্যে কৃষ্ণ ও রাধিকার জন্মকাহিনী ব্যক্ত হয়েছে। কৃষ্ণ পাপী কংস রাজাকে বধ করার জন্য দেবকী ও বাসুদেবের সন্তান হিসেবে জন্ম নেয়।তবে পাপী কংস রাজা আগে থেকেই জানত যে দেবকী ও বাসুদেবের সন্তানই তাকে ধ্বংস করবে। এজন্য পাপী কংস রাজা দেবকী ও বাসুদেবকে আলাদা করে তার রাজ দরবারে বন্দী করে রাখে। দেবকী ছিল কংস রাজার বোন। সে হিসেবে কংস কৃষ্ঞের মামা হয়।কিন্তু  ঈশ্বরের ইচ্ছায় একদিন ঝড়ের রাতে দেবকী ও বাসুদেবের মিলন হয়।তখন দেবকীর গর্ভে সন্তান আসে। দেবকী ও বাসুদেব তাদের সন্তান কৃণ্ঞকে গোপনে তাঁকে অনেক দূরে বৃন্দাবনে জনৈক নন্দ গোপের ঘরে রেখে আসে।সেখানে কৃষ্ঞ বড় হতে থাকে। সেখানেই দৈব ইচ্ছায় আরেক গোপ সাগর গোয়ালার স্ত্রী পদ্মার গর্ভে জন্ম নেয় রাধা। দৈব নির্দেশেই বালিকা বয়সে নপুংসক (ক্লীব) অভিমন্যু বা আইহন বা আয়ান গোপের (ঘোষের) সঙ্গে রাধার বিয়ে হয়। আয়ান গোচারণ করতে গেলে বৃদ্ধা পিসি বড়ায়িকে রাধার তত্ত্বাবধানে রাখা হয়।

২.তাম্বুল খণ্ড

তাম্বুলখণ্ডে বড়ায়ির মারফত রাধার কাছে কৃষ্ণের তাম্বুল প্রণয়োপহার প্রেরণ এবং দানখণ্ডে শুল্ক আদায়ের ছলে কৃষ্ণ কর্তৃক অনিচ্ছুক রাধার উপর বলপ্রয়োগের বৃত্তান্ত বিবৃত হয়েছে। তাম্বুল অর্থ পান। রাধা ঘর থেকে বের হয়ে অন্য গোপীদের সঙ্গে মথুরাতে দই-দুধ বিক্রি করতে যায়। বড়ায়ি তাঁর সঙ্গে যায়। বৃদ্ধা বড়ায়ি পথে রাধাকে হারিয়ে ফেলে এবং রাধার রূপের বর্ণনা দিয়ে কৃষ্ণকে জিজ্ঞেস করে, এমন রূপসীকে সে দেখেছে কিনা। এই রূপের বর্ণনা শুনে রাধার প্রতি কৃষ্ণ পূর্বরাগ অনুভব করে। সে বড়ায়িকে বুঝিয়ে রাধার জন্য পান ও ফুলের উপহারসহ প্রস্তাব পাঠায়। কিন্তু বিবাহিতা রাধা সে প্রস্তাব পদদলিত করে।

৩.দান খণ্ড

দই-দুধ বিক্রির জন্য মথুরাগামী রাধা ও গোপীদের পথ রোধ করে কৃষ্ণ। তার দাবী নদীর ঘাটে পারাপার-দান বা শুল্ক দিতে হবে, তা না হলে রাধার সঙ্গে মিলিত হতে দিতে হবে। রাধা কোনোভাবেই এ প্রস্তাবে রাজী হয় না। এ দিকে তাঁর হাতেও কড়ি নেই। সে নিজের রূপ কমাবার জন্য চুল কেটে ফেলতে চাইল; কৃষ্ণের হাত থেকে বাঁচবার জন্য বনে দৌড় দিল। কৃষ্ণও পিছু ছাড়বার পাত্র নয়। অবশেষে কৃষ্ণের ইচ্ছায় কর্ম হয়।

৪. নৌকা খণ্ড

নৌকাখণ্ডে কৃষ্ণ কর্তৃক যমুনা নদীতে নৌকা ডুবিয়ে যমুনায় রাধার সঙ্গে মিলনের এবং ভারখণ্ডে ও ছত্রখণ্ডে ইন্দ্রিয়বিলাসের উদ্দেশ্যে কৃষ্ণের বাহকবৃত্তির কথা বলা হয়েছে। দানখন্ডের পর থেকে রাধা কৃষ্ণকে এড়িয়ে চলে। কৃষ্ণ নদীর মাঝির ছদ্মবেশ ধারণ করে। একজন পার করা যায় এমন একটি নৌকাতে রাধাকে তুলে সে মাঝ নদীতে নিয়ে নৌকা ডুবিয়ে দেয় এবং রাধার সঙ্গ লাভ করে। নদী তীরে উঠে লোকলজ্জার ভয়ে রাধা সখীদের বলে যে, নৌকা ডুবে গিয়েছে, কৃষ্ণ না থাকলে সে নিজেও মরত, কৃষ্ণ তাঁর জীবন বাঁচিয়েছে।

৫. ভার খণ্ড

শরৎকাল। শুকনো পথ ঘাটে হেঁটেই মথুরাতে গিয়ে দই-দুধ বিক্রি করা যায়। কিন্তু রাধা আর বাড়ির বাইরে আসে না। শাশুড়ি বা স্বামীকে সে আগের ঘটনাগুলো ভয়ে ও লজ্জায় খুলে বলে নি। এদিকে রাধা অদর্শনে কৃষ্ণ কাতর। সে বড়ায়িকে দিয়ে রাধার শাশুড়িকে বোঝায়, ঘরে বসে থেকে কি হবে, রাধা দুধ-দই বেচে কটি পয়সা তো আনতে পারে। শাশুড়ির নির্দেশে রাধা বাইরে বের হয়। জিন্তু প্রচণ্ড রোদে কোমল শরীরে দই-দুধ বহন করতে গিয়ে সে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। এই সময়ে কৃষ্ণ ছদ্মবেশে মজুরী করতে আসে। পরে ভার বহন অর্থাৎ মজুরির বদলে রাধার আলিঙ্গন কামনা করে। রাধা এই চতুরতা বুঝতে পারে। সেও কাজ আদায়ের লক্ষ্যে মিথ্যা আশ্বাস দেয়। কৃষ্ণ আশায় আশায় রাধার পিছু পিছু ভার নিয়ে মথুরা পর্যন্ত চলে।

৬.ছত্র খণ্ড

ছত্রখণ্ডে পসরা বিক্রি করে চন্দ্রাবলী মথুরা থেকে ফিরছেন । শরতের রোদের তাপ থেকে তাঁকে রক্ষা করার জন্য কৃষ্ণ তাঁর মাথার উপর ছত্র ধারণ করেছেন ।

দুধ-দই বেচে এবার মথুরা থেকে ফেরার পালা। কৃষ্ণ তাঁর প্রাপ্য আলিঙ্গন চাইছে। রাধা চালাকি করে বলে, ‘এখনো প্রচণ্ড রোদ। তুমি আমাদের ছাতা ধরে বৃন্দাবন পর্যন্ত চলো। পরে দেখা যাবে’। কৃষ্ণ ছাতা ধরতে লজ্জা ও অপমান বোধ করছিল। তবুও আশা নিয়ে ছাতা ধরেই চলল। কিন্তু তাঁর আশা পূর্ন করেনি রাধা।

৭. বৃন্দাবন খণ্ড

বৃন্দাবনখণ্ডে বড়ায়ির অনুরোধে কৃষ্ণ কর্তৃক ফুলে ফলে সজ্জিত রাধার বৃন্দাবনে গমন এবং সেখানে রাধাকৃষ্ণের মিলনের কথা বলা হয়েছে । রাধার বিরুদ্ধ মনোভাব কৃষ্ণকে ভাবান্তর ঘটায়। সে অন্য পথ অবলম্বন করে। নিজে কটু বাক্য বলে না, দান বা শুল্ক আদায়ের নামে বিড়ম্বনা করে না, বরং বৃন্দাবনকে অপূর্ব শোভায় সাজিয়ে তুলল। রাধা ও গোপীরা সেই শোভা দর্শন করে কৃষ্ণের উপর রাগ ভুলে যায়। তাঁরা পরিবর্তিত কৃষ্ণকে দেখতে আগ্রহ দেখায়। কৃষ্ণ সব গোপিকে দেখা দেয়। পরে রাধার সঙ্গে তাঁর দর্শন ও মিলন হয়।

৮. কালিয়দমন খণ্ড

কালিয়দমনখণ্ডে যমুনার কালিয় দহের কালিয় নাগকে সপরিবারে দক্ষিণ সাগরে পাঠিয়ে কৃষ্ণ কালিয়দহের বিপদ দূর করেন । যমুনা নদী বৃন্দাবনের উপর দিয়ে প্রবাহিত। সেখানে কালিয়নাগ বাস করে। তার বিষে সেই জল বিষাক্ত। কৃষ্ণ কালিয়নাগকে তাড়াতে নদীর জলে ঝাঁপ দেন। দৈব ইচ্ছায় ও কৃষ্ণের বীরত্বে কালিয়নাগ পরাস্ত হয় এবং দক্ষিন সাগরে বসবাস করতে যায়। কালিয়নাগের সঙ্গে কৃষ্ণ যখন জলযুদ্ধে লিপ্ত, তখন রাধার বিশেষ কাতরতা প্রকাশ পায়।

৯. যমুনা খণ্ড

যমুনাখণ্ডে রাধা-কৃষ্ণের যমুনাবিহার, কৃষ্ণ কর্তৃক গোপিনিদের বস্ত্র অপহরণের কাহিনী বর্ণিত হয়েছে। রাধা ও গোপীরা যমুনাতে জল আনতে যায়। কৃষ্ণ যমুনার জলে নেমে হটাৎ ডুব দিয়ে আর উঠে না। সবাই মনে করে কৃষ্ণ দুবে গেছে। এদিকে কৃষ্ণ লুকিয়ে কদম গাছে বসে থাকে। রাধা ও সখীরা জলে নেমে কৃষ্ণকে খুঁজতে থাকে। কৃষ্ণ নদী তীরে রাধার খুলে রাখা হার চুরি করে আবার গাছে গিয়ে বসে।

১০. হার খণ্ড

হারখণ্ডে কৃষ্ণ কর্তৃক রাধার হার-অপহরণ ও যশোদার কাছে রাধার অভিযোগ পেশের কাহিনী বর্ণিত হয়েছে। পরে কৃষ্ণের চালাকি রাধা বুঝতে পারে। হার না পেয়ে রাধা কৃষ্ণের পালিতা মা যশোদার কাছে নালিশ করে। কৃষ্ণও মিথ্যে বলে মাকে। সে বলে, আমি হার চুরি করব কেন, রাধাতো পাড়া সম্পর্কে আমার মামি। এদিকে বড়ায়ি সব বুঝতে পারে এবং রাধার স্বামী আয়ান হার হারানোতে যাতে রাগান্বিত বা ক্ষুব্ধ না হয় সেজন্য বলে যে, বনের কাঁটায় রাধার গজমোতির হার ছিন্ন হয়ে হারিয়ে গেছে।

১১. বাণ খণ্ড

বাণখণ্ডে রাধার প্রতি কৃষ্ণের সম্মোহনবাণ নিক্ষেপের কাহিনী বিবৃত হয়েছে । মায়ের কাছে নালিশ করায় কৃষ্ণ রাধার উপর ক্ষুব্ধ। রাধাও কৃষ্ণের প্রতি প্রসন্ন নয়। বড়ায়ি বুদ্ধি দিল, কৃষ্ণ যেন শক্তির পথ পরিহার করে মদনবাণ বা প্রেমে রাধাকে বশীভূত করে। সে মতো কৃষ্ণ পুষ্পধনু নিয়ে কদমতলায় বসে। রাধা কৃষ্ণের প্রেমবাণে মূর্চ্ছিত ও পতিত হয়। এরপর কৃষ্ণ রাধাকে চৈতন্য ফিরিয়ে দেয়। রাধা কৃষ্ণপ্রেমে কাতর হয়ে কৃষ্ণকে খুঁজে ফেরে।

১২.বংশী খণ্ড

বংশীখণ্ডে রাধা কর্তৃক কৃষ্ণের বংশী অপহরণ এবং রাধা-বিরহখণ্ডে রাধার নিদ্রার অবকাশে কৃষ্ণের মথুরায় পলায়নের বর্ণনা দেওয়া হয়েছে । রাধাকে আকৃষ্ট করার জন্য সময়-অসময়ে কৃষ্ণ বাঁশিতে সুর তোলে। কৃষ্ণের বাঁশি শুনে রাধার রান্না এলোমেলো হয়ে যায়, মন কুমারের চুল্লির মতো পুড়তে থাকে, রাত্রে ঘুম আসে না, ভোর বেলা কৃষ্ণ অদর্শনে রাধা মূর্চ্ছা যায়। বড়ায়ি রাধাকে পরামর্শ দেয়, সারারাত বাঁশি বাজিয়ে সকালে কদমতলায় কৃষ্ণ বাঁশি শীয়রে রেখে ঘুমায়। তুমি সেই বাসি চুরি কর, তাহলেই সমস্যার সমাধান হবে। রাধা তাই করে। কৃষ্ণ বুদ্ধিমান। বাঁশি চোর কে তা বুঝতে তাঁর কোনো কষ্ট হয় না। রাধা কৃষ্ণকে বলে, বড়ায়িকে সাক্ষী রেখে কৃষ্ণকে কথা দিতে হবে যে, সে কখনো রাধার কথার অবাধ্য হবে না ও রাধাকে ত্যাগ করে যাবে না, তাহলেই বাঁশির সন্ধান মিলতে পারে। কৃষ্ণ কথা দিয়ে বাঁশি ফিরে পায়।

১৩.রাধা-বিরহ খণ্ড

কৃষ্ণ তারপরও রাধার উপর উদাসীন। এদিকে মধুমাস সমাগত।রাধা বিরহ অনুভব করে। রাধা বড়ায়িকে কৃষ্ণকে এনে দিতে বলে। দই-দুধ বিক্রির ছল করে রাধা নিজেও কৃষ্ণকে খুঁজতে বের হয়। অবশেষে বৃন্দাবনে বাঁশি বাজানো অবস্থায় কৃষ্ণকে খুঁজে পাওয়া যায়। কৃষ্ণ রাধাকে বলে, ‘তুমি আমাকে নানা সময় লাঞ্ছনা করেছো, ভার বহন করিয়েছো, তাই তোমার উপর আমার মন উঠে গেছে’। রাধা বলে, ‘তখন আমি বালিকা ছিলাম, আমাকে ক্ষমা করো। আমি তোমার বিরহে মৃতপ্রায়। তির্যক দৃষ্টি দিলেও তুমি আমার দিকে তাকাও’। কৃষ্ণ বলে, ‘বড়ায়ি যদি আমাকে বলে যে তুমি রাধাকে প্রেম দাও, তাহলে আমি তোমার অনুরোধ রাখতে পারি’। অবশেষে বড়ায়ি রাধাকে সাজিয়ে দেয় এবং রাধা কৃষ্ণের মিলন হয়। রাধা ঘুমিয়ে পড়লে কৃষ্ণ নিদ্রিত রাধাকে রেখে কংসকে বধ করার জন্য মথুরাতে চলে যায়। ঘুম থেকে উঠে কৃষ্ণকে না দেখে রাধা আবার বিরহকাতর হয়। রাধার অনুরোধে বড়ায়ি কৃষ্ণের সন্ধানে যায় এবং মথুরাতে কৃষ্ণকে পেয়ে অনুরোধ করে, ‘রাধা তোমার বিরহে মৃতপ্রায়। তুমি উন্মাদিনীকে বাঁচাও’। কিন্তু কৃষ্ণ বৃন্দাবনে যেতে চায় না, রাধাকে গ্রহন করতে চায় না। কৃষ্ণ বলে, ‘আমি সব ত্যাগ করতে পারি, কিন্তু কটু কথা সহ্য করতে পারি না। রাধা আমাকে কটু কথা বলেছে’। (‘শ্রীকৃষ্ণকীর্তন’ কাব্য এখানে ছিন্ন। পৃষ্ঠা পাওয়া না যাওয়ায়, এ কাব্যের সমাপ্তি কেমন তা জানা যায় নি।)

 

কাহিনি বর্ণনায় এক খণ্ডের কাহিনীর সঙ্গে পরবর্তী খণ্ডের কাহিনীর সম্পর্কসূত্র সুন্দরভাবে গ্রথিত হয়েছে। এ কাহিনী জনগণের মনোরঞ্জনের জন্য রচিত এবং প্রায় সবখানিই কবির স্বকপোলকল্পিত । পুরাণের কাহিনীর সঙ্গে এর সম্পর্ক অত্যন্ত ক্ষীণ।কবি এ কাব্যের সর্বত্র ভাগবতের হুবহু অনুসরণ করেন নি। কোনো কোনো খণ্ড ভাগবতের অনুসরণে নির্মিত, আবার কোনো কোনো খণ্ডে কবি কল্পনার আশ্রয় গ্রহণ করেছেন। এ বিরাট গ্রন্থের মুখ্য পাত্রপাত্রী মাত্র তিনজন-কৃষ্ণ, রাধা ও বড়ায়ি । এ তিনজনের সংলাপের মধ্য দিয়েই সমস্ত কাহিনী নাটকীয়গুণে মণ্ডিত হয়ে উঠেছে। প্রতিটি ঘটনা নাটকীয় ভঙ্গিতে উপস্থাপিত হয়েছে।

প্রথম দিকে কৃষ্ণের প্রতি যে-রাধিকার বিন্দুমাত্র আগ্রহ দেখা যায় না, বংশীখণ্ড থেকে তিনিই কৃষ্ণপ্রেমে পাগলিনী। আর একদিকে বংশীখণ্ডের পূর্ব পর্যন্ত যে কৃষ্ণ রাধাবিরহে পাগলপ্রায়, সে কৃষ্ণই আবার বংশী ও বিরহখণ্ডে  চরম ঔদাসীন্য ও নির্লিপ্ততার পরিচয় দিয়েছেন। জন্মখণ্ডের মধ্যে আমরা একবার নারদকে পাই; এরপর আবার বিরহখণ্ডে পরম এক নাটকীয় মুহূর্তে তাঁর দর্শন মেলে। পরে কৃষ্ণবিরহে কাতর শ্রীরাধিকার এক ব্যথাবিধুর মুহূর্তে পরম উপকারীর বেশে নারীদের উপস্থিতি যেন সকল পাঠকের একান্ত কাম্য মনে হয়। আবার রাধাকৃষ্ণের মিলনের লগ্নকে উপভোগ্য করার জন্য যখন একটা উত্তেজনার আবহ পাঠকমনে রসচেতনার জোয়ার বয়ে আনে, ঠিক সেই মুহূর্তে কৃষ্ণদর্শনে মুগ্ধ রাধাকে কবি সংজ্ঞাহীন মূর্ছিতা করে চরম নাটকীয় পরিবেশ সৃষ্টি করতে পেরেছেন । এভাবে দানখণ্ডে রাধা- কৃষ্ণের উক্তি-প্রত্যুক্তিতে, নৌকাখণ্ডে হঠাৎ নৌকা-নিমজ্জনে, বংশীখণ্ডে নিদ্রিত কৃষ্ণের নিকট থেকে বংশী চুরি এবং পরে কৃষ্ণের যোগীবেশ ধারণ প্রভৃতি ঘটনায় গ্রন্থের প্রায় সর্বত্রই নাটকীয় সংঘটনের আভাস পাওয়া যায় ।

শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের রাধা সাগর গোয়ালার কন্যা। তাঁর আর এক নাম চন্দ্রাবলী। তাঁর মায়ের নাম পদুমিনী। সেখানে রাধার সখিদের বা কৃষ্ণের সখাদের নামোল্লেখ নেই । পদাবলির রাধা বৃকভানু বা বৃষভানু রাজার কন্যা । কলাবতী বা কীর্তিদা তাঁর জননী। চন্দ্রাবলী তাঁর সখি ও প্রতিনায়িকা। এখানে রাধার সখিদের ও কৃষ্ণের সখাদের নামোল্লেখ পাওয়া যায়।

শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে কৃষ্ণের আবির্ভাবের একমাত্র কারণ কংসবধ। কাব্যের শেষ দিকে শ্রীকৃষ্ণ কংসবধের উদ্দেশ্যেই রাধাকে ছেড়ে মথুরায় চলে যান । কিন্তু পদাবলিতে বৃন্দাবন-রস আস্বাদনের জন্যই কৃষ্ণের মর্তে আগমন ।

চন্ডীদাস সমস্যা

চণ্ডীদাসের পদাবলি দীর্ঘকাল ধরে প্রচলিত থাকায় শ্রীকৃষ্ণকীর্তন' কাব্য আবিষ্কারের পর বাংলা সাহিত্যে চণ্ডীদাস সমস্যার উদ্ভব ঘটে। ১৯৪১ সালে মণীন্দ্রনাথ বসু কর্তৃক দীন চণ্ডীদাসের পদাবলি আবিষ্কৃত হলে চণ্ডীদাস সমস্যা আরো প্রকট হয়। ড. দীনেশ চন্দ্র সেন পদাবলির দ্বিজ চণ্ডীদাস এবং শ্রীকৃষ্ণকীর্তনের বড়ু চণ্ডীদাসকে একই ব্যক্তি বলে মত দিয়েছেন । পরবর্তীতে দীন চণ্ডীদাসের পদাবলি আবিষ্কারের পর তিনজন চণ্ডীদাসের অস্তিত্ব সম্পর্কে পণ্ডিতদের অনেকেই একমত হন। এ তিনজন হলেন - বড়ু চণ্ডীদাস, দ্বিজ চণ্ডীদাস ও দীন চণ্ডীদাস। চৈতন্য পূর্ববর্তী যুগে ছিলেন বড়ু চণ্ডীদাস ও দ্বিজ  চণ্ডীদাস এবং চৈতন্য পরবর্তী যুগে ছিলেন দীন চণ্ডীদাস ।

এই পোস্টগুলি আপনার ভাল লাগতে পারে:

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন